ajkervabna.com
বৃহস্পতিবার ২৪শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

৪ দিন ধরে নদীতে পণ্যবোঝাই ৭ জাহাজ আটকা

অনলাইন ডেস্ক | ১৭ নভেম্বর ২০২০ | ৬:৪২ অপরাহ্ণ | 37 বার

৪ দিন ধরে নদীতে পণ্যবোঝাই ৭ জাহাজ আটকা

পণ্য পরিবহনে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া-পাবনার নগরবাড়ী-সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়ী গুরুত্বপূর্ণ নৌপথ। সেখানে নির্ধারিত ড্রাফটের বিভিন্ন পণ্যবাহী শত শত কোস্টার জাহাজ নিয়মিত চলাচল করে থাকে। কিন্তু নদীর পানি কমে ওই নৌপথের বিভিন্ন পয়েন্টে অসংখ্য ডুবোচর সৃষ্টি হয়েছে। পাশাপাশি চ্যানেলে পানির গভীরতা কমে যাওয়ায় সেখানে মালবাহী জাহাজ চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। চট্টগ্রাম ও মোংলা থেকে ছেড়ে আসা নগরবাড়ী ও বাঘাবাড়ী বন্দরগামী বিভিন্ন সার, গম, কয়লা ও ক্লিংটার বোঝাই সাতটি কোস্টার জাহাজ গত চার দিন যাবত গোয়ালন্দের দৌলতদিয়ায় পদ্মা নদীতে আটকা পড়ে আছে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ছয় নম্বর ফেরিঘাট থেকে এক কিলোমিটার ভাটিতে পদ্মা নদীতে নোঙর করে আছে এমভি হিমু, এমভি রামেসা, এমভি মাস্টার মোহাই মিলন, এমভি বর্ষা, এমভি পূর্ণিমা ও এমভি মুক্তা-মিত, এমভি রোদেলা নামের সাতটি কোস্টার জাহাজ। শতাধিক শ্রমিক জাহাজগুলো থেকে মালামাল নামিয়ে বোলগেটে বোঝাই করছে।
আটকে পড়া জাহাজ চালকদের (মাস্টার) সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পদ্মা ও যমুনা নদীর পানি কমে দৌলতদিয়া-নগরবাড়ী-বাঘাবাড়ী নৌপথে অসংখ্য ডুবোচর ও নব্যতা সংকট দেখা দিয়েছে। এর মধ্যে নৌচ্যানেলের মোল্লার চর, ব্যাটারির চর, কানাইদিয়া, লতিফপুর, নাকালিয়া ও পেঁচাখোলা এলাকায় নাব্যতা সংকট সবচেয়ে বেশি। প্রয়োজনীয় পানির গভীরতা না থাকায় সেখানে ১০ থেকে ১৩ ড্রাফটের মালবোঝাই কোনো জাহাজ চলাচল করতে পারছে না। এ কারণে চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর থেকে ছেড়ে আসা পাবনার নগরবাড়ী ও সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়ী বন্দরগামী বিভিন্ন মালামাল বোঝাই ওই কোস্টার জাহাজগুলো গত চার দিন যাবত গোয়ালন্দের দৌলতদিয়ায় আটকা পড়ে আছে। আগামী সাত দিনের মধ্যে জাহাজ থেকে মালগুলো আনলোড করতে না পারলে বয়ে আনা মালামালের মালিকপক্ষকে প্রতিদিন জাহাজপ্রতি ১০ হাজার টাকা করে ‘ডেমারেজ’ গুনতে হবে। এ ক্ষেত্রে ২২ দিন পার হলে জাহাজ ভাড়া দ্বিগুন পরিশোধ করতে হবে। তাই জাহাজ থেকে মালগুলো দ্রুত নামিয়ে সেগুলো বোলগেটে করে নগরবাড়ী ও বাঘাবাড়ী নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

জাহাজ থেকে মালামাল নামানোর কাজে কর্মরত সিরিয়াল মাস্টার মো. আব্দুল লতিফ বলেন, ‘নৌপথে নব্যতা সংকট ও ডুবোচরের কারণে মালবাহী কোস্টার জাহাজগুলো সরাসরি নগরবাড়ী ও বাঘাবাড়ী বন্দরে যেতে পারছে না। পথে গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া এলাকায় এসে আটকে জাহাজগুলো আটকা পড়ছে। এখান থেকে মালামাল আনলোড করে আমরা সেগুলো বোলগেটে করে নগরবাড়ি ঘাটে পৌছে দিচ্ছি। এতে সংশ্লিষ্ট মালের মালিকপক্ষকে বোলগেট ভাড়া ও লেবার খরচ বাবদ অতিরিক্ত টাকা গচ্ছা দিতে হচ্ছে।’

আটকে পড়া জাহাজ এমভি মুক্তা-মিতুর চালক রসাইফুল ইসলাম তোলা জানান, চট্টগ্রম বন্দর থেকে ইউরিয়া সার বোঝাই ১০ ড্রাফটের জাহাজ নিয়ে তিনি সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়ী যাচ্ছিলেন। পথে গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাটের কাছাকাছি পৌঁছে অন্যান্য জাহাজের সঙ্গে তার জাহাজটিও নব্যতা সংকটের মুখে সেখানে আটকা পড়ে আছে।
বিআইডাব্লিউটিএ’র আরিচা অঞ্চলের পোর্ট অফিসার মো. সেলিম রেজা বলেন, ‘পণ্য পরিবহনে দৌলতদিয়া-নগরবাড়ী-বাঘাবাড়ী একটি গুরুত্বপূর্ণ নৌপথ। সারা বছর জুড়ে সেখানে নির্ধারিত ড্রাফটের বিভিন্ন পণ্যবাহী শত শত কোস্টার জাহাজ নিয়মিত চলাচল করে থাকে। তবে প্রতি বছর শুষ্ক মৌসুমে ওই নৌপথের চ্যানেলে পানির গভীরতা কমে যাওয়ায় সেখানে ৮ ড্রাফটের উপরে পণ্যবোঝাই কোন জাহাজ চলাচল করতে পারে না।’ তবে, নাব্যতা সংকট মোকাবেলায় বিআইডাব্লিউটিএ’র ড্রেজিং বিভাগ সেখানে খনন কাজের প্রক্রিয়া চালাচ্ছে।

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৬:৪২ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর ২০২০

ajkervabna.com |

advertisement
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
advertisement
আর্কাইভ
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
advertisement

©- 2021 ajkervabna.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।